বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯সত্য ও সুন্দর আগামীর স্বপ্নে...

ধর্ম

আমলই নির্ধারণ করবে কে উত্তম, কে অধম

আমলই নির্ধারণ করবে কে উত্তম, কে অধম

ধর্ম
সালমা সাহলি : কাউকে যখন এই পৃথিবীর মায়া ছেড়ে চলে যেতে হয়- তখন সে সত্যিই অসহায়, অপারগ। পৃথিবীর যতোই ক্ষমতাধর কেউ হোন, এই একটা জায়গায় বড় বেশি অক্ষম, চাইলেও কিছু করার থাকে না। এ প্রসঙ্গে আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘জীব মাত্রই মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করবে। আর কিয়ামতের দিনই তোমাদের কর্মফল পূর্ণমাত্রায় প্রদান করা হবে। যাকে আগুন (জাহান্নাম) থেকে দূরে রাখা হবে এবং যে জান্নাতে প্রবেশ লাভ করবে সেই হবে সফলকাম। আর পার্থিব জীবন ছলনাময় ভোগ-বিলাস ছাড়া আর কিছু নয়।’ -সূরা আল ইমরান: ১৮৫ পরিচিত বা বিখ্যাতেদের কেউ যখন এই পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করেন, তখন তা মিডিয়াতে খবর হয়ে আসে। যেকোনো মৃত্যু সংবাদে মানুষের মন নরম হয়, মানুষ ব্যাথিত হয়; আল্লাহর কাছে দোয় করে। কেউ কেউ কঠিন বাস্তবটাও উপলব্ধি করেন। কখনও কখনও কারও মৃত্যুতে সোশ্যাল মিডিয়ায় হায় হায় রব উঠে। এ যেনো এক মায়াকান্না। কান্না তখনই মায়াকান্না হয়- যখন এতে থাকে ব
লক্ষ্মীপুরে হামদ-নাত প্রতিযোগীতা

লক্ষ্মীপুরে হামদ-নাত প্রতিযোগীতা

ধর্ম, লক্ষ্মীপুর, শিশুতোষ, সদর
লক্ষ্মীপুর: পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে লক্ষ্মীপুরে হামদ-নাত প্রতিযোগীতা, আলোচনা সভা, দোয়া, মিলাদ মাহফিল ও পুরস্কার বিতরণ করা হয়েছে। শনিবার (০২ ডিসেম্বর) বিকেলে জেলা পরিষদ মিলনায়তনে লক্ষ্মীপুর শিশু একাডেমী এ আয়োজন করে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. মাইন উদ্দিন পাঠান। বিশেষ অতিথি ছিলেন লক্ষ্মীপুর ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক মো. রেজ্জাকুল হায়দার, শিশু একাডেমীর পরিচালনা কমিটির সদস্য আবুল মোবারক ভূঁইয়া, দৈনিক লক্ষ্মীপুর সমাচার পত্রিকার সম্পাদক জাকির হোসেন ভুঁইয়া আজাদ ও প্রফেসর আবদুল কাদের। অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন লক্ষ্মীপুর জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা আবদুল্লাহ আল জব্বার। দোয়া ও মিলাদ পরিচালনা করেন জেলা পরিষদ জামে মসজিদের খতিব হাফেজ আবুল কাশেম। হামদ-নাত প্রতিযোগীতায় শিশু একাডেমীসহ জেলার বিভিন্ন স্কুল ও মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা অংশ
মানুষ আধুনিক হচ্ছে, কিন্তু লোপ পাচ্ছে মায়া-মমতা

মানুষ আধুনিক হচ্ছে, কিন্তু লোপ পাচ্ছে মায়া-মমতা

ধর্ম, মুক্তকথা
মুহাম্মদ হাফিজুর রহমান, অতিথি লেখক : দেশে ভয়াবহ আকারে ছড়িয়ে পরেছে পরকীয়া। সাজানো গোছানো সংসার ভেঙে চুরমার হয়ে যাচ্ছে। সন্তানদের ভবিষ্যৎ অন্ধকারে হারিয়ে যাচ্ছে। এর কারণে ভাঙছে পরিবার, সংঘটিত হচ্ছে একের পর এক নিষ্ঠুর হত্যাকান্ড। মানবীয় সমাজে এমন সব কাজ সংঘটিত হচ্ছে যা পশু সমাজেও ঘটে না। জন্মগতভাবে মানুষ দু’টি সত্ত্বার সমম্বয়ে গঠিত। একটি পাশবিক সত্ত্বা অপরটি মানবিক সত্ত্বা। পাশবিক সত্ত্বাকে নিয়ন্ত্রণ করে মানবীয় সত্ত্বার বিকাশ ঘটিয়ে মানুষ তার মানবীয় মূল্যবোধের পরিচয় দেবে এটাই মানুষ সৃষ্টির উদ্দেশ্য। মানুষের মানবীয় সত্ত্বার পাশাপাশি স্রষ্টা তাকে আরও কিছু গুণাবলী দিয়ে সৃষ্টি করেছেন তা হচ্ছে- প্রেম-ভালোবাসা, মায়া-মমতা, উদারতা-বদান্যতা, সন্তান বাৎসল্য, স্নেহ, প্রেম-প্রীতি ও ভক্তি- শ্রদ্ধা ইত্যাদি। পৃথিবীর শুরু থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত মানব বংশের গতিধারা রক্ষার জন্য অনন্য যে পদ্ধতি মানব
পবিত্র কাবা ও মসজিদে নববিতে ছবি তোলায় নিষেধাজ্ঞা

পবিত্র কাবা ও মসজিদে নববিতে ছবি তোলায় নিষেধাজ্ঞা

ধর্ম
অনেক আগে থেকেই আলেম-উলামারা বলে আসছিলেন পবিত্র কাবা ও মসজিদে নববিতে ছবি উঠানো নিষেধ করা প্রসঙ্গে। পবিত্র এই দুই মসজিদসহ হজের আনুষ্ঠানিকতার সময় ছবি উঠানোর প্রবণতা রীতিমতো ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছিলো। এবার তার পরিসমাপ্তি ঘটতে যাচ্ছে। সম্প্রতি পবিত্র কাবা ও মসজিদে নববিতে ছবি তোলায় নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে সৌদি সরকার। ইসলামের অন্যতম পবিত্র স্থান মসজিদে নববিতে এক ইসরাইলি নাগরিক ছবি তুলে তা সামাজিক মাধ্যমে প্রচারের পর পবিত্র কাবাঘর ও মসজিদে নববি এবং এর পার্শ্ববর্তী এলাকায় পর্যটকদের ছবি তোলার ওপর এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হলো। ১২ নভেম্বর দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ সিদ্ধান্ত দিয়েছে বলে বৃহস্পতিবার তথ্য ও গণমাধ্যম বিভাগের মহাপরিচালক এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছেন। খবর ডেইলি সাবাহর। বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে, পবিত্র কাবাঘর ও মসজিদে নববির পবিত্রতা রক্ষা এবং এর মর্যাদা অক্ষুণ্ণ রাখতে এমন সিদ্ধান্
পবিত্র কোরআনই শান্তির একমাত্র ঠিকানা

পবিত্র কোরআনই শান্তির একমাত্র ঠিকানা

ধর্ম
মাহমুদা নওরিন, অতিথি লেখক : মানবতার মুক্তির দূত হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সবার জন্য সর্বোত্তম আদর্শ। পবিত্র কোরআনে আল্লাহতায়ালা এ প্রসঙ্গে ইরশাদ করেন, ‘তোমাদের জন্য রাসূল (সা.)-এর আদর্শই সর্বোত্তম আদর্শ। সারা বিশ্বে জাতি ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সব যুগের সব মানুষের সেরা মানুষ হজরত মুহাম্মদ (সা.)।সারা দুনিয়ার সবচে’ আলোচিত উচ্চারিত নাম হজরত মুহাম্মদ (সা.)। হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) কেমন ছিলেন? এ বিষয়ে জানার আগ্রহ প্রত্যেক মুসলমানের রয়েছে। বিভিন্ন কিতাবের বর্ণনায় এসেছে, হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) ছিলেন সুন্দর আকৃতি বিশিষ্ট, সৌরভে সুবাসিত, গঠনে মধ্যম, দেহে সবল, মাথা ছিল বড় আকৃতির, দাড়ি ছিল ঘন, হস্ত ও পদদ্বয় ছিল মাংসল, উভয় কাঁধ ছিল বড়, চেহারায় ছিল রক্তিম ছাপ, চুল ছিল সরল, গণ্ডদ্বয় কোমল। চলার সময় ঝুঁকে চলতেন, মনে হতো যেন উঁচু স্থান থেকে নিচুতে অবতরণ করছেন। যদি কোনো দিকে ফিরতেন, প