বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯সত্য ও সুন্দর আগামীর স্বপ্নে...

রামগতি

মেঘনা নদীর তীর রক্ষা বাঁধ করবে সেনা বাহিনী

মেঘনা নদীর তীর রক্ষা বাঁধ করবে সেনা বাহিনী

কমলনগর, খবর, টপ সেকশন-২, রামগতি, সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
নিজস্ব প্রতিবেদক : বিকল্পধারার মহাসচিব; লক্ষ্মীপুর-৪ (রামগতি-কমলনগর) আসনের এমপি মেজর (অব.) আবদুল মান্নান বলেছে, রামগতি ও কমলনগর উপজেলার এক ইঞ্চি জমিও আর নদীতে ভাঙতে দেওয়া হবে না। ভাঙন প্রতিরোধে ৩২ কিলোমিটার তীর রক্ষা বাঁধ নির্মাণ করা হবে। আগামী নভেম্বর থেকে কাজ শুরু হবে। ৪/৫টি পয়েন্টে সেনা বাহিনী দিয়ে ভাঙন রোধে কাজ করা হবে। বুধবার (১৪ আগস্ট) সন্ধ্যায় উপজেলার ফলকন নদী ভাঙন পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ শেষে লুধূয়া ঈদগাঁ মাঠ ও হাজিরহাট বাজারে সংক্ষিপ্ত পথ সভায় তিনি এসব কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, যে কোনো মূল্যে নদী ভাঙন থেকে রামগতি-কমলনগরকে রক্ষা করা হবে। নদী শাসন করা কঠিন কোনো কাজ নয়। সরকার ভাঙন প্রতিরোধে আন্তরিক। বিশ্বের বিভিন্ন উন্নত দেশের ন্যায় বাংলাদেশও নদী শাসন করতে সক্ষম। ভাঙন থেকে রক্ষায় সরকার পর্যাপ্ত বরাদ্দ দিবে। বর্ষা মৌসুম হওয়ায় এখন মেঘনার নদীর ভিবিন্ন অংশে ভাঙছে। সাময়িকভাবে ভাঙন ঠেকাত
রামগতি-কমলনগরে মেঘনার ভাঙন পর্যবেক্ষণে মেজর মান্নান

রামগতি-কমলনগরে মেঘনার ভাঙন পর্যবেক্ষণে মেজর মান্নান

কমলনগর, টপ সেকশন-১, রামগতি, লক্ষ্মীপুর
লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি : বিকল্পধারার মহাসচিব লক্ষ্মীপুর-৪ (রামগতি-কমলনগর) আসনের এমপি মেজর (অব.) আবদুল মান্নান মেঘনা নদীর ভাঙন পরিস্থিতি দেখেতে নদীতে নেমেছেন। ভাঙন রোধে আরও কার্যকারী প্রদক্ষেপ নিতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের নিয়ে ভাঙন পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন। শুক্রবার (১৬ আগস্ট) সকাল ১১ টায় কমলনগর উপজেলার মতিরহাট থেকে নৌকায় যোগে নদীর কূল ঘেঁষে ভাঙন পরিস্থিতি দেখছেন। এভাবে রামগতি পর্যন্ত পর্যবেক্ষণ করেন। যাওয়ার পথে নাছিরগঞ্জ নবীগঞ্জ মাতাব্বরহাট লুধূয়াসহ ভাঙন কবলিত বিভিন্ন এলাকার লোকজনের সঙ্গে কথা বলেন। এসময় মেজর (অব.) আবদুল মান্নান বলেন, বর্ষা মৌসুম হওয়ায় মেঘনা নদীর ভাঙন আরও বেড়েছে। আপাতত ভাঙন ঠেকাতে বিভিন্ন স্থানে বালু ভর্তি জিও ব্যাগ ডাম্পিং করা হবে। লুধূয়া এলাকায় কাজ চলছে। যেস্থানে ভাঙন সেস্থানেই কাজ হবে। বর্ষা শেষ হলে নভেম্বর মাসে কমলনগরের মতিরহাট থেকে রামগতি পর্যন্ত স্থান
শিক্ষক শহরে, শিক্ষার্থীরা ক্লাসে !

শিক্ষক শহরে, শিক্ষার্থীরা ক্লাসে !

টপ সেকশন-১, রামগতি, শিক্ষা, সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
নিজস্ব প্রতিবেদক : নদীর ওই পাড়ে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। বিদ্যালয়ের একমাত্র শিক্ষক মো. জসিম উদ্দিন তিনি থাকেন এই পাড়ে শহরে। নদী পাড়ি দিয়ে বিদ্যালয় যেতে তার অনিহা। মাসে ২/৩ দিন বিদ্যালয়ে গেলেও নির্ধারিত সময়ের আগেই স্কুল ছেড়ে শহরে ফিরেন তিনি। এমন পরিস্থিতিতে শিক্ষা বঞ্চিত হচ্ছে শিশু শিক্ষার্থীরা।   লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলার মেঘনার বুকে জেগে উঠা চর আবদুল্লাহ ইউনিয়ন। ওই ইউনিয়নের একটি অবহেলিত গ্রাম তেলির চর। চরের জনতা বাজার সংলগ্ন এলাকায় অবস্থিত চর সেবেজ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এর আশেপাশে প্রায় ২শ’ পরিবারের বসবাস। ওইসব পরিবারের শত-শত শিশুর একমাত্র জ্ঞান অর্জনের মাধ্যম বিদ্যালয়টি। তবে বিদ্যালয় থাকলেও নেই পর্যাপ্ত শিক্ষক। মাত্র একজন সহকারী শিক্ষক থাকলেও নিয়মিত উপস্থিতি নেই তার। এতে মারাত্নকভাবে ব্যাহত হচ্ছে পড়া-লেখা। জানা গেছে, মেঘনার ভয়াবহ ভাঙনে ২০১৭ সালের মাঝামাঝিতে চর সেবেজ সরকারি প
মেঘনার ভাঙন রোধে কাজ করা হবে : মেজর (অব.) আবদুল মান্নান

মেঘনার ভাঙন রোধে কাজ করা হবে : মেজর (অব.) আবদুল মান্নান

কমলনগর, টপ সেকশন-১, রামগতি, সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
নিজস্ব প্রতিবেদক : বিকল্পধারার মহাসচিব ও লক্ষ্মীপুর-৪ (কমলনগর-রামগতি) আসনের সংসদ সদস্য মেজর (অব.) আবদু মান্নান বলেছেন, লক্ষ্মীপুরের কমলনগর-রামগতি উপজেলায় মেঘনার ভয়াবহ ভাঙনে বিস্তৃর্ণ জনপথ বিলীন হয়ে গেছে। সারাবছর ধরে অব্যাহত ভাঙনে এখানকার মানুষ অসহায়। এ ভয়াবহ ভাঙন থেকে রক্ষায় কাজ করা হবে । শীঘ্রই ১৪০০ মিটার কাজ করা হবে। এছাড়াও আরও ১৫ কিলোমিটার কাজের জন্য মন্ত্রণালয়ে অনুমোদনের চেষ্টা করা হচ্ছে। শনিবার (৩০ মার্চ) দুপুরে উপজেরার মাতাব্বরহাট নদী তীর রক্ষা বাঁধ পরিদর্শণ কালে পথসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, আমি শুধু দলের নয়; সকলের এমপি। সবাই আমার কাছে সমান। আমি সবার কথা শুনবো; এলাকার উন্নয়নের চেষ্টা করবো। সুখে-দুঃখে আপনাদের পাশে থাকবো। কমলনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি একেএম নুরুল আমিন মাস্টারের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন মেজর (অব.) আবদুল মান্নানের সহধর্মিনী
মুক্তিযোদ্ধা হাসান মাহমুদ ফেরদৌস আর নেই

মুক্তিযোদ্ধা হাসান মাহমুদ ফেরদৌস আর নেই

রামগতি, লক্ষ্মীপুর
নিজস্ব প্রতিবেদক : যুদ্ধকালীন লক্ষ্মীপুরের বৃহত্তর রামগতি থানা মুজিব বাহিনীর অধিনায়ক, ৭১ এর ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির রামগতি উপজেলার সভাপতি ও বর্তমান বড়খেরী ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা হাসান মাহমুদ ফেরদৌস আর নেই (ইন্নালিল্লাহি....রাজিউন)। রোববার ভোর রাতে ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন। তার বয়স হয়েছিল ৭০ বছর। তিনি দীর্ঘ দিন ধরে হৃদরোগে ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী ও এক মেয়ে, তিন ছেলে রেখে গেছেন। হাসান মাহমুদ ফেরদৌসের জানাজার নামাজ বিকেল ৫টায় রামগতি আহমদিয়া কলেজ মাঠে অনুষ্ঠিত হবে। জানাজার নামাজ শেষে উপজেলার বড়খেরী ইউনিয়নের দায়রা বাড়ির পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে। সাবেক সংসদ সদস্য আবদুল্লাহ আল মামুন, রামগতি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল ওয়াহেদ মুরাদ ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আবদুল ওয়াহেদ গভীর শোক প্রকাশ করেন।