বুধবার, ২৪ জুলাই ২০১৯সত্য ও সুন্দর আগামীর স্বপ্নে...

জীবনযাপন

ওরা আর ফিরবে না…

ওরা আর ফিরবে না…

জীবনযাপন, টপ সেকশন-১, সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
নিজস্ব প্রতিবেদক : বিড়াল তিনটি ছিলো ইঁদুরের জম। স্বভাবে ভদ্র হলেও তারা ইঁদুরের জন্য ছিল অভদ্র। এছাড়া সারাদিন ছুটে বেড়াতো ঘরের এক রুম থেকে অন্য রুমে। কিন্তু হঠাৎ করে বিড়ালগুলোর দেখা মিলছিল না। বাড়ির আশপাশে কোথাও দেখাও যাচ্ছিল না। খাওয়ার সময় আগের মত জালাতনও করছিল না। (more…)
ইফতারে মজাদার ডিমের চপ

ইফতারে মজাদার ডিমের চপ

জীবনযাপন, সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
মেঘনারপাড় ডেস্ক : ইফতারে নানারকম চপ ছাড়া যেন চলেই না। ডিম দিয়েও তৈরি করা যায় মজাদার চপ। খেতে ভীষণ সুস্বাদু আর তৈরি করতে সময়ও লাগে কম। তবে অবশ্যই বাইরে থেকে নয়, ঘরেই তৈরি করুন এই ডিমের চপ। রইলো রেসিপি- (more…)
ধূমপান ছাড়তে চাইলে যা করবেন

ধূমপান ছাড়তে চাইলে যা করবেন

জীবনযাপন
ধূমপায়ীর সংখ্যা যেমন বাড়ে, তেমন ছাড়ার সংখ্যাও কম নয়। তবে অনেকে ধূমপান ছাড়ার ঘোষণা দিয়েও ছাড়তে পারেন না। তাদের জন্য রয়েছে কিছু ঘরোয়া পদ্ধতি। যা ধূমপানের নেশাকে ছাড়াতে দারুণ কাজ করে। এ ক্ষেত্রে ধৈর্য ধরে এ পদ্ধতিগুলো কাজে লাগাতে হবে। আসুন দেখে নেই পদ্ধতিগুলো- মরিচের গুঁড়া এক গ্লাস পানিতে অল্প মরিচের গুঁড়া ফেলে সেই পানি পান করলে ফুসফুসের ক্ষমতা বাড়ে। সেই সঙ্গে ধূমপানের কারণে লাংয়ের যে ক্ষতি হয়, তা ধীরে ধীরে কমে। এছাড়া ধূমপানের ইচ্ছাও কমে। মুলেঠি ধূমপানের নেশা ছাড়াতে মুলেঠি বিশেষ ভূমিকা পালন করে। নিয়মিত মুলেঠি চিবানো শুরু করলে একদিকে যেমন ধূমপানের ইচ্ছা কমে, তেমনি নানাবিধ পেটের রোগের প্রকোপও হ্রাস পায়। মুলা ১ গ্লাস মুলার রসের সঙ্গে পরিমাণমতো মধু মিশিয়ে দিনে দু’বার খেলে ধূমপানের ইচ্ছা একেবারে কমে যায়। আঙুর আঙুরের রস শরীরের ভেতরে জমতে থাকা টক্সিন বের করে নেয়। ফলে একদি
যে কারণে পেয়ারা খাবেন

যে কারণে পেয়ারা খাবেন

জীবনযাপন
পেয়ারায় আঁশ, পানি, কার্বহাইড্রেট, প্রোটিন, ভিটামিন এ, ভিটামিন কে, পটাশিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম, ফসফরাস, ক্যালসিয়াম ইত্যাদি খাদ্য পুষ্টি উপাদান রয়েছে। এছাড়া রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন বি ও খনিজ পদার্থ। বিশেষজ্ঞদের মতে, একটি পেয়ারায় ৪টি কমলালেবুর সমান পুষ্টিগুণ বিশেষ করে ভিটামিন সি রয়েছে। তাই সম্ভব হলে প্রতিদিন ১টি করে আর না হলে সপ্তাহে অন্তত একটি করে হলেও প্রতিটি মানুষের পেয়ারা খাওয়া উচিত। চলুন জেনে নেই পেয়ারার আরো কিছু উপকারিতা- উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ রাখতে পেয়ারা বেশ কার্যকর। ওজন কমাতে, কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে এবং মুখের রুচি বাড়াতেও জুড়ি নেই পেয়ারার। তাই যারা পেটের সমস্যায় ভুগছেন তারা নির্দ্বিধায় এটি খেতে পারেন। এতে ইনফেকশনরোধী উপাদান রয়েছে যা হজমক্রিয়া শক্তিশালী করে।রক্তসঞ্চালণ ভালো রাখে। ফলে হার্টের রোগীরা এটি নিয়মিত খেতে পারেন। অ্যাজমা, ঠান্ডা-কাশিতে কাঁচা পেয়ারার জুস বেশ উপকার
ওজন বাড়ায় যেসব ফল

ওজন বাড়ায় যেসব ফল

জীবনযাপন
ওজন কমানোর জন্য ডায়েটে বেশি পরিমাণ ফল রাখার কথা বলেই থাকেন নিউট্রিশনিস্টরা। কিন্তু ফল স্বাস্থ্যকর হলেও এমন কিছু ফল রয়েছে যেগুলোতে শর্করার মাত্রা বেশি। তাই ওজন কমানোর পথে বাধা বয়ে দাঁড়ায়। কলা: কলার মধ্যে শর্করার মাত্রা বেশি। ফাইবার থাকলেও আরও অনেক ফল রয়েছে যার মধ্যে একই পরিমাণ ফাইবারের সঙ্গে শর্করার পরিমাণ অনেক কম। ড্রাই ফ্রুটস: ড্রাই ফ্রুটসকে স্বাস্থ্যকর স্ন্যাকস হিসেবে গণ্য করা হলেও ড্রাই ফ্রুটের টাটকা ফলের তুলনায় দ্রুত রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। পেঁপে: এই ফলে চিনির পরিমাণ যেমন বেশি, তেমনই ফাইবার প্রায় নেই বললেই চলে। তাই এক দিকে যেমন রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়ে, তেমনই ফাইবার না থাকায় মেটাবলিজমে সাহায্য করে না পেঁপে। আনারস: খুবই রসাল, সুস্বাদু ফল আনারস। কিন্তু এই ফলে চিনির পরিমাণ অত্যন্ত বেশি যা ওজন কমানোর পথে বড় বাধা। আম: গরমে আম খেতে সকলেই ভালোবাসেন। কিন্তু ওজন কম