শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০সত্য ও সুন্দর আগামীর স্বপ্নে...

লক্ষ্মীপুরে জাবেদ হত্যার ঘটনায় ৩৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা

লক্ষ্মীপুরে জাবেদ হত্যার ঘটনায় ৩৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক : লক্ষ্মীপুরে দুই ডাকাত দলের ‘বন্দুকযুদ্ধে’ জাবেদ হোসেন নামে এক যুবক হত্যার ঘটনায় শ্রমিকলীগ নেতা মোছনসহ ৩৫ জনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারি) সকালে নিহতের পরিবারের লোকজন সাংবাদিকদের মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেন। এরআগে রোববার (১৮ ফেব্রুয়ারি) নিহতের মা ফাতেমা বেগম বাদি হয়ে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট চন্দ্রগঞ্জ আদালতে এ মামলা দায়ের করেন। এতে মোছনকে প্রধান করে ১০ জনের নাম উল্লেখসহ ২৫জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে তদন্তের জন্য চন্দ্রগঞ্জ থানাকে নির্দেশ দেন। নিহত জাবেদ সদর উপজেলার চরশাহী ইউনিয়নের ইটখোলা গ্রামের হোসেন আহমদের ছেলে ও সিএনজি চালক ছিলেন। অভিযুক্ত মোছেন একই ইউনিয়নের সহিদপুর গ্রামের কোবছা মাঝির ছেলে। তিনি চরশাহী ইউনিয়ন শ্রমিকলীগের সভাপতি। পুলিশ জানায়, লক্ষ্মীপুরের চরশাহী ইউনিয়নের খাগোড়িয়া এলাকায় দুই ডাকাত দলের বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় জাবেদ হোসেন মিন্টু গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান। তবে পরিবারের দাবী জাবেদকে তুলে নিয়ে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। পরে দুই ডাকাত দলের বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে বলে প্রচার করা হয়েছে। মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, চরশাহী ইউনিয়নের শ্রমিকলীগ নেতা মোছনের সাথে জাবেদের দীর্ঘদিন ধরে জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। মঙ্গলবার (১৩ ফেব্রুয়ারী) জাবেদ বাড়িতে দুপুরের খাবার খেতে বসেছিলো। এসময় মোছেনের নেতৃত্বে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা সিরাজসহ সাদা পোশাকদারী ৪০-৫০ জনের একদল লোক বাড়িতে হামলা চালায়। এক পর্যায়ে তারা অস্ত্রের মুখে জাবেদকে পিটিয়ে তুলে নিয়ে যায়। পরে বুধবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) সকালে জানতে পারে জাবেদের গুলিবিদ্ধ মরদেহ খাগোড়িয়া গ্রামে রাস্তার পাশে পড়ে আছে। এসময় পুলিশ তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। এ ঘটনায় চন্দ্রগঞ্জ থানায় মামলা করতে গেলেও পুলিশ মামলা না নিয়ে ফেরত পাঠায় নিহতর পরিবারকে। এদিকে জাবেদ ডাকাত দলের সাথে সংশ্লিষ্টতা ছিলোনা দাবি করে নিহতের স্ত্রী নাছিমা বেগম জানান, তার স্বামীকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে হত্যা করা হয়েছে। অথচ ডাকাত দলের ‘বন্দুকযুদ্ধে’ গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয়েছে প্রচার করা হয়েছে। এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবী করেন তিনি। বাদী পক্ষের আইনজীবি মো. ইউসুফ চৌধুরী বলেন, জাবেদ হত্যার ঘটনায় আদালত মামলাটি আমলে নিয়েছেন। মামলাটি তদন্তের জন্য চন্দ্রগঞ্জ থানাকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। লক্ষ্মীপুরের চন্দ্রগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোক্তার হোসেন জানান, দুই ডাকাত দলের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় জাবেদ গুলিবিদ্ধ হয়। পরে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় থানায় মামলাও হয়েছে। উল্লেখ্য, লক্ষ্মীপুরের চরশাহী ইউনিয়নের খাগোড়িয়া এলাকা থেকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় জাবেদ হোসেন মিন্টুর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এসময় ঘটনাস্থল থেকে একটি এলজি, ৮ রাউন্ড গুলি, ১০টি গুলির খোসা উদ্ধার করেছেন বলে জানান পুলিশ।
  • Facebook
  • Twitter
  • LinkedIn
  • Print
Copy link
Powered by Social Snap