মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০সত্য ও সুন্দর আগামীর স্বপ্নে...

লক্ষ্মীপুরে ছাত্রলীগের মারধরের ঘটনায় ব্যবসায়ীরা রাস্তায়

লক্ষ্মীপুরে ছাত্রলীগের মারধরের ঘটনায় ব্যবসায়ীরা রাস্তায়

নিজস্ব প্রতিবেদক লক্ষ্মীপুরে নাঈম হোসেন রুবেল নামের এক গার্মেন্টস ব্যবসায়ীকে তুলে নেওয়ার চেষ্টা চালিয়েছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। মঙ্গলবার (১৯ ডিসেম্বর) বিকেলে পৌরসভার চক বাজার জামে মসজিদ মার্কেটের দ্বিতীয় তলার ফ্যাশন ডট কমে এ ঘটনা ঘটে। এসময় আতংকিত হয়ে মার্কেটের শতাধিক ব্যবসায়ী দোকান-পাট বন্ধ করে দেয়। এর প্রতিবাদে তারা বিক্ষোভ মিছিল করে। খবর পেয়ে থানা পুুলিশ ঘটনাস্থল গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। পরে পুলিশের আশ্বাসের প্রেক্ষিতে ব্যবসায়ীরা দোকান পাট খোলেন। এদিকে এ ঘটনার প্রতিবাদে বিকেল ৫ টায় লক্ষ্মীপুর বণিক সমিতির কার্যালয়ে এক জরুরি সভা করা হয়। ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিচার না হলে অনির্দিষ্টকালের জন্য সব ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার আল্টিমেটার দেওয়া হয়। প্রত্যক্ষদর্শী ও মার্কেটের ব্যবসায়ীরা জানায়, বিকেল তিনটার দিকে গার্মেন্টস ব্যবসায়ী নাঈম হোসের রুবেল তার প্রতিষ্ঠানে বসে ছিলেন। এসময় পৌর ছাত্রলীগের বহিস্কৃত নেতা মিনহাজ আলম সাকিব ১৫-২০ সহযোগী নিয়ে তার কাছে আসে। এক পর্যায়ে তারা রুবেলকে তুলে নেওয়ার চেষ্টা করে। ব্যবসায়ীরা জড়ো হলে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা সটকে পড়ে। পরে আতংকিত ব্যবসায়ীরা দোকান-পাট বন্ধ করে মার্কেটের মূল ফটকে তালা ঝুঁলিয়ে দিয়ে বিক্ষোভ মিছিল করে। দায়ীদের বিচার দাবি করে বিভিন্ন শ্লোগান দেওয়া হয়। মিছিলটি মার্কেটের সামনে থেকে শুরু হয়ে পৌরসভার মেয়র আবু তাহেরের বাসভবনের সামনে গিয়ে শেষ হয়। জানা যায়, দলীয় নেতাকর্মীদের কুপিয়ে জখম করার ঘটনায় গত ২ মে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নির্দেশে মিনহাজ আলম সাকিবকে বহিস্কার করেছে জেলা নেতারা। শাকিব জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক রাকিব হোসেন লোটাসের অনুসারি হিসেবে পরিচিত। লক্ষ্মীপুর পৌরসভা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহাদাত হোসেন ভূঁইয়া বলেন, ঘটনাটি আমি শুনেছি। তবে কে বা কারা এটি করেছে, আমার জানা নেই। দলের কোন নেতাকর্মী জড়িত থাকলে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। লক্ষ্মীপুর বণিক সমিটির সভাপতি ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ কে এম সালাহ উদ্দিন টিপু বলেন, এর আগেও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা অন্যায়ভাবে একাধিক ব্যবসা-প্রতিষ্ঠানে হামলা চালিয়েছে। তাদের বেপরোয়া আচরনে ব্যবসাযীরা অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। এতে দলের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে। আমাদের সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছে, জড়িতদের বিচার না হলে অনির্দিষ্টকালের জন্য সব ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হবে। লক্ষ্মীপুর সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লোকমান হোসেন বলেন,খবর পেয়ে পুলিশ পাঠিয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করা হয়। এ ঘটনায় থানায় কেউ লিখিত অভিযোগ করেননি।
  • Facebook
  • Twitter
  • LinkedIn
  • Print
Copy link
Powered by Social Snap