মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১সত্য ও সুন্দর আগামীর স্বপ্নে...

বিমান হবে এশিয়ার একটি লাভজনক প্রতিষ্ঠান : শাহজাহান কামাল

বিমান হবে এশিয়ার একটি লাভজনক প্রতিষ্ঠান : শাহজাহান কামাল

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী একেএম শাহজাহান কামাল বলেছেন, নেতিবাচক ইমেজ দূর করে বিমান যাতে নিরাপত্তা ও আস্থার প্রতীক হয় সে লক্ষ্যে কাজ করব। এ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নেয়াকে অনেকে ‘আগুনে নিক্ষেপের’ সঙ্গে তুলনা করছেন। কিন্তু সেই আগুনকে আমি পানিতে পরিণত করব। বিমানকে এশিয়ার একটি লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপ দেব। পর্যটন শিল্প যাতে সরকারের নীতিনির্ধারণী মহলের কাছে যথাযথ গুরুত্ব পায় সে প্রচেষ্টাও অব্যাহত থাকবে। বৃহস্পতিবার মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে দায়িত্ব হস্তান্তর অনুষ্ঠানের পর সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন। বুধবার মন্ত্রিসভায় রদবদলে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান কামাল। বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে এসে আগের মন্ত্রী রাশেদ খান মেননের কাছ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব বুঝে নেন তিনি। নতুন মন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, ‘দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন, কর্মসংস্থান ও ভাবমূর্তি বৃদ্ধিতে এভিয়েশন ও পর্যটন খাত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। এ সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে পারলে এ খাত হতে পরে দেশের সমৃদ্ধির অন্যতম হাতিয়ার।’ অনুষ্ঠানে বাণিজ্যমন্ত্রীর সঙ্গে আত্মীয়তার কথা জানান শাহজাহান কামাল। বলেন, ‘আমার মেয়ের বিয়ে হয়েছে তোফায়েল আহমেদের ছেলের সঙ্গে। সেই সূত্রে তিনি আমার বেয়াই।’ তিনি বলেন, ‘নেত্রী (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) তিন দিন আগে বেয়াইকে (তোফায়েল) বলেন, আপনি (বিমান মন্ত্রণালয়ের) দায়িত্ব নেন। বেয়াই বলেন, না না না, আমি নেব না। পরে বুধবার বেয়াই বাসায় এসে আমাকে সাহস দিয়ে যান।’ সাংবাদিকদের হাসতে হাসতে নতুন মন্ত্রী বলেন, ‘অনেকে বলেছেন আপনাকে আগুনে নিক্ষেপ করা হয়েছে। কিন্তু না এটা আগুন নয়, এটা আমার জন্য পানি। যে পানি খাইয়্যা আমি জীবন বাঁচাই, সেটা আমার জন্য পানি। আমি এটাও বলি, আমি পারব ইনশাআল্লাহ, আমি আশাবাদী, আমি নিরাশাবাদী নই, আপনাদের সহযোগিতা চাই।’ গত চার বছরে দেশের প্রধান বিমানবন্দর শাহজালালের নিরাপত্তা প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে একাধিক ঘটনায়। নিরাপত্তা শঙ্কার কারণ দেখিয়ে যুক্তরাজ্য কার্গো বহনে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। তাতে মুনাফায় বড় ধস নেমেছে। প্রধানমন্ত্রীর বিমানে ত্রুটির ঘটনা নিয়েও সমালোচিত হয়েছে এ মন্ত্রণালয়। এক প্রশ্নের জবাবে শাহজাহান কামাল বলেন, ‘বিমানে চড়লে ঠিকমতো সার্ভিস দেয় না এবং জনগণ বিমানের ভালো সার্ভিস পায় না। এটা বাইরের লোকজন বলতেছে। বাইরের বদনামটা আমি শুনছি। আসলে বাইরে যতটুকু শোনা যায় প্র্যাকটিক্যাল ততটুকু নয়, এই বদনামকে আমি ধুয়েমুছে সুন্দর করে পরিষ্কার করে দেব।’ বিমানকে লাভজনক করতে কী কী পদক্ষেপ নেবেন- এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘বিমানকে লাভজনক করা খুব কঠিন কাজ নয়। আমি জাতির জনকের সঙ্গে কাজ করেছি। এখন আমি কাজ করছি বঙ্গবন্ধুর কন্যার সঙ্গে। এই মন্ত্রণালয়কে লাভজনক প্রতিষ্ঠান করার জন্য জীবন আর রক্ত দিয়ে চেষ্টা করব। নয় মাসে এই মন্ত্রণালয়কে লাভজনক প্রতিষ্ঠান করে দেখাব। নতুন পরিকল্পনা নিয়ে নিষ্ঠা ও সততার সঙ্গে কাজ করে যাব।’ এ সময় বিমানকে পুরো এশিয়া মহাদেশের একটি লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরিত করার আশার কথাও শোনান শাহজাহান কামাল। আগের মন্ত্রী রাশেদ খান মেননকে নিজের ‘ভাই’ সম্বোধন করে মন্ত্রী কামাল বলেন, ‘তিনি একজন প্রগতিশীল নেতা। দেশপ্রেমিক। তিনি কোনো সম্পদের মালিক নয়। অর্থের জন্য রাশেদ খান মেনন রাজনীতি করেননি। আমি তাকে ছাত্রজীবন থেকে চিনি।’
  • Facebook
  • Twitter
  • LinkedIn
  • Print
Copy link
Powered by Social Snap