মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯সত্য ও সুন্দর আগামীর স্বপ্নে...

ফিলিস্তিনে গণঅভ্যুত্থানের সম্ভাবনা!

ফিলিস্তিনে গণঅভ্যুত্থানের সম্ভাবনা!

ফিলিস্তিনের রামাল্লা শহরের আল-মানারা স্কয়ারে ইসরাইলের বিরুদ্ধে ব্যাপক বিক্ষোভ করেছেন স্থানীয়রা। জেরুজালেম ইস্যুতে ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের মধ্যে চলমান দ্বন্দ্বের মধ্যেই যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প শহরটিকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ায় সেখানকার জনগণ বিক্ষোভে ফুঁসে ওঠেছে। খবর সিএনএন'র। বৃহস্পতিবার ফিলিস্তিনের বিভিন্ন শহরের রাস্তায় বিক্ষোভে নামে হাজার হাজার ফিলিস্তিনি। সেখানে সংবাদমাধ্যম সিএনএনকে তাদের প্রতিক্রিয়ার কথা জানান। বিক্ষোভকারীরা বলেন, ইসরায়েলের সঙ্গে আর কোনো সম্পর্ক নেই। তাদের সঙ্গে সব ধরনের চুক্তি প্রত্যাহার করতে হবে, জেরুজালেম আমাদের জীবন, আমাদের জীবনকে তো আমরা ত্যাগ করতে পারি না, হয়ত তৃতীয় একটি ইন্তিফাদা (গণঅভ্যুত্থান) মুখোমুখি হচ্ছি আমরা। মার্কিন প্রেসিডেন্টের সিদ্ধান্তের পর বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে এমন ক্ষোভ ও নিন্দার ঝড়। ক্ষোভের পরিমাণটা ফিলিস্তিনিদের মধ্যে অনেক বেশি। এদিকে ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীর অঞ্চলগুলোতে ছড়িয়ে পড়েছে বিক্ষোভ। বিক্ষোভকারীদের দমনে মোতায়েন করা হয়েছে শত শত ইসরায়েলি সেনা। অপরদিকে রেড ক্রিসেন্টের তথ্য অনুযায়ী, বেথলেহেম ও রামাল্লায় ইসরায়েলি বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে আহত হয়েছে কমপক্ষে ৪৯ বিক্ষোভকারী। ইসরায়েলের সামরিক বাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়, গাজায় এক ভাষণে হামাস নেতা ইসমাইল হানিয়া নতুন করে গণঅভ্যুত্থানের ডাক দিয়েছেন। এর কয়েক ঘণ্টার মধ্যে গাজা উপত্যকার বিভিন্ন এলাকা থেকে গুলির শব্দ শোনা গেছে। এদিকে ট্রাম্পের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে ফিলিস্তিনি নাগরিকরা শুক্রবার বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে।