বুধবার, ২৪ জুলাই ২০১৯সত্য ও সুন্দর আগামীর স্বপ্নে...

পিয়ারাপুরে জমজমাট সবজির হাট

পিয়ারাপুরে জমজমাট সবজির হাট

সাজ্জাদুর রহমান : লক্ষ্মীপুরের সবচেয়ে বড় ও পাইকারি সবজির হাট পিয়ারাপুর। এই হাটে লাখ লাখ টাকার সবজি বিক্রি করেন কৃষকরা। কৃষকদের উৎপাদিত কৃষিপণ্য তারা সরাসরি হাটে তোলেন; খুচরা ও পাইকারি দামে বিক্রি করেন। এখানকার টাটকা সবজি রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্নস্থানে চাহিদা মেটায়।

লক্ষ্মীপুর শহরের তিন কিলোমিটার দক্ষিণে রামগতি-লক্ষ্মীপুর সড়কের পাশে পিয়ারপুর বাজার। ব্রীজের উত্তর পাশে সবজির হাট। সপ্তাহের চারদিন; রবি সোম বৃহস্পতি ও শুক্রবার পিয়ারাপুর বাজারে শাক সবজির জমজমাট হাট বসে। যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো থাকায় সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত দুর-দুরান্ত থেকে আগত ব্যবসায়ীরা ট্রলি, পিকআপ ও ট্রাক ভরে সবিজ কিনে শহরে নেয়। এমন চিত্র সারা বছর ধরে দেখা যায়। স্থানীয় ব্যবসায়ীরা কৃষকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে সবজি কিনেন, জেলা শহরসহ বিভিন্ন হাট-বাজারে বিক্রি করেন।
সোমবার (৭ জানুয়ারি) সকালে ওই হাটে দিয়ে দেখা যায়, শীতকালিন শাক-সবজিতে ভরে আছে বাজার। ট্রলি ভর্তি বাঁধাকপি সাজিয়ে রেখেছেন কৃষকরা। ব্যবসায়ীরা দরদাম করে কিনে ট্রাক ভরছেন। এভাবে বিক্রি হচ্ছে মুলা, লাউ, গাজর, ফুলকপি, টমেটো, কাঁচা মরিচ, কুমড়া, আলু, শিম, ধুন্দুল, করলা, ঢেঁড়স, লালশাক, পুঁইশাক, পেঁপেসহ নানান শাকসবজি।
জানা গেছে, লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার লাহারকান্দি, ভবানীগঞ্জ, আবদুল্লাহপুর, চর উভুতি, পিয়ারাপুর, মিয়ার বেড়ি, টুমচর, কালিরচর এলাকায় ব্যাপকহারে সবজি চাষ হয়। এসব এলাকার কৃষকরা সবজি উৎপাদন করে লাভবান হওয়ায় দিন দিন শাক-সবজির আবাদ বাড়ছে। চলতি শীত মৌসুমে ফসলের মাঠ জুড়ে শীতকালীন শাক-সবজি। কৃষকরা ক্ষেত থেকে শাক সবজি সংগ্রহ করে পিয়ারাপুরের হাটে উঠান। স্থানীয় কৃষকদের উৎপাদিত টাটকা শাকসবজিতে পিয়ারাপুরে বসে জমজমাট সবজিরহাট।
স্থানীয় কৃষকরা জানান, তারা সারা বছর ধরে বিভিন্ন শাক সবজি উৎপাদন করেন। তাদের উৎপাদিত কৃষিপন্য পিয়ারাপুরের হাটে উঠান। ব্যবসায়ীরা নগদ টাকায় কিনে নেন শহরে। সপ্তাহে চারদিন এই হাটে তারা শাক সবজি বিক্রি করেন।
নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ থেকে আসা ব্যবসায়ী মো. হারুন জানান, পিয়ারাপুর বাজার থেকে টাটকা শাক-সবজি নিয়ে বিক্রি করেন। এতে তার ভালো লাভ হয়।