মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০সত্য ও সুন্দর আগামীর স্বপ্নে...

জানি না সে কেমন আছে…

জানি না সে কেমন আছে…

হাসান মাহমুদ শাকিল :

জন্ম হওয়ার পর একটি শিশুর কাছে পৃথিবীর সবই থাকে অচেনা। ধীরে ধীরে সে মাকে চিনে এবং আকড়ে ধরে। একপর্যায়ে বাবা থেকে শুরু করে আত্মীয়-স্বজন সবাইকে আপন করে নেয়। অবশেষে সে ছোট্ট শিশুটি বড় হতে থাকে।

জীবনকে সুন্দর করে গড়ার লক্ষ্যে তার পড়াশোনার উদ্যোগ নেয় পরিবার। ধনী হলে বাবা-মা তাদের সন্তানকে ইংলিশ মিডিয়াম কিংবা ভালো কোন প্রাইভেট বিদ্যালয়ে ভর্তি করেন। আর মধ্যবিত্ত হলে সরকারি বিদ্যালয়ে।

শুরু হয় সে শিশুটির জীবনের প্রথম পদক্ষেপ। প্রাথমিক গন্ডিতেই অচেনা কতমুখের সাথে তার বন্ধুত্ব হয়। তবে সবাই ভালো বন্ধু হয় না। এদের মধ্যে কেউ একজন ভালো বন্ধু হিসেবে স্বীকৃতি পায়। পড়াশোনার পরের ধাপ মাধ্যমিক বিদ্যালয়। সেখানেও অনেক নতুন মুখের সাথে তার পরিচয় হতে থাকে। আর সেই প্রাথমিকের বন্ধুদের মধ্যে অনেকেই হারিয়ে যায়।

নতুনদের সাথে ভাব করতে একটু সময় লাগে। তারপরও পড়াশোনা আর সবার সাথে মিলে-মিশে থাকতে খুব ভালো লাগে। আর এভাবে আবারো বন্ধুত্ব সৃষ্টি হয় অনেকের সাথে। তবে সেই ভালো বা কাছের বন্ধু মুষ্টিমেয় কয়েকজন হয়। যাদের সাথে নিয়মিত আড্ডা ও খেলাধুলায় অংশগ্রহণ করা যায়। এছাড়া পড়াশোনার ব্যাপারে একে অপরের সহযোগীতাও পেয়ে থাকে। আবার অনেক সময় সুখ-দুঃখও তারা ভাগাভাগি করা যায়।

হয়তো শিশু ছেলে কিংবা মেয়েটি বালক কিংবা বালিকা বিদ্যালয়ে পড়াশোনা করতো। তাই বিপরীত লিঙ্গের মানুষের সাথে তার সখ্যতা গড়ে উঠে না।

এবার পড়াশোনার তৃতীয় ধাপে এসে সবাই চিন্তা করে ভালো একটি কলেজে ভর্তি হওয়ার। যেখানে ছেলে মেয়ে সবাই একসাথে পড়ে। সেখানে ধীরে ধীরে ছেলে-মেয়ের সাথে একটি বন্ধুত্বপুর্ন সম্পর্ক গড়ে উঠে। এইচএসসিতে ভালো ফলাফল করে বিশ^বিদ্যালয়ে ভর্তি হয়।

এরই মধ্যে অনেকের মনে প্রেম-ভালোবাসা সৃষ্টি হয়। খুঁজে নেয় মনের মানুষকে। চলতে থাকে মাসের পর মাস কিংবা বছরের পর বছর প্রেম-ভালোবাসা। দেখা যায় অনেক সময় সম্পর্ক শুরুতেই নষ্ট হয়ে যায়। আবার অনেকের সম্পর্কে দেখা যায়, ছেলের চাকরি নেই বলে মেয়েরা তার সাথে সম্পর্ক টিকিয়ে রাখে না। পরিস্থিতির চাপে পড়ে বেকারদের অনেক কিছুই মেনে নিতে হয়। আবার মেয়েদের সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার ইচ্ছে থাকলেও তা পারে না পরিবারের সম্মানের কথা বিবেচনা করে।

মা-বাবার আত্মীয়-স্বজনের পরে যাকে মনের মনি কৌঠায় বন্দি করে পরিস্থিতি উল্টো পথে থাকায় তা আর টিকিয়ে রাখা সম্ভব হয় না। হারিয়ে যায় নিবিড় সম্পর্ক। যা দুইটি মনে বেঁধেছিল স্বপ্নের সাম্রাজ্য। মেয়েটির হয়তো অন্য কোথাও বিয়ে হয়। কোন ধর্ণাঢ্য ব্যক্তি কিংবা চাকরিজীবী বা ব্যবসায়ীর সাথে। আর সেই ছেলেটি চাকরির জন্য দিশেহারা হয়ে পড়ে। এক সময় সে চাকরি কিংবা ভালো ব্যবসাও করে প্রচুর অর্থ উপার্জন করে। কিন্তু সেতো তার সে ভালোবাসা কিংবা মনের সেই মানুষটিকে আর খুঁজে পায় না।

তখন শুধু একটা কথা বারবার মনে পড়ে, জানি না সে কেমন আছে...। সে কি আমায় ভুলে গেছে। নাকি আজো আমার সাথে থাকা সেই স্মৃতিগুলো স্মরণ করে। হয়তো সত্যিই ওই মেয়েটি একই কথা ভাবে। কিন্তু দু’জনের সাথে কোন সাক্ষাত নেই।

  • Facebook
  • Twitter
  • LinkedIn
  • Print
Copy link
Powered by Social Snap