শনিবার, ৩১ অক্টোবর ২০২০সত্য ও সুন্দর আগামীর স্বপ্নে...

এক দিনের নয়, সারাবছরের জন্য শহীদ মিনার

এক দিনের নয়, সারাবছরের জন্য শহীদ মিনার

হাসান মাহমুদ শাকিল : শহীদ মিনার। এটি ১৯৫২ সালে ভাষা শহীদদের স্মরণে স্থাপিত হয়। প্রতিবছর ২১ ফেব্রুয়ারী শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে ভাষা শহীদদের স্মরণ করা হয়। ২০ ফেব্রুয়ারি রাত ১২ টা ১ মিনিটে শহীদ বেদীতে ফুল দিয়ে দিবসটি উদযাপন করে বাঙ্গালী জাতি। আমরা জানি যে, শহীদ বেদীতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধার সাথে ভাষা শহীদদের স্মরণ করা হয়। এইদিন বাংলাদেশীদের মনে খুশি বয়ে আনে। দিনটি নানা আনন্দ উৎসবের মধ্যে দিয়ে উদযাপন করে রাজনীতিবিদ, তরুণ-তরুণী ও প্রবীণরা। ১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারি যে চেতনায় উদ্দীপিত হয়ে বাঙালিরা রক্ত দিয়ে মাতৃভাষাকে মর্যাদার আসনে প্রতিষ্ঠিত করেছিল। আজ তা দেশের গন্ডি পেরিয়ে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছ থেকে স্বীকৃতি লাভ করেছে। আর এজন্যই জাতিসংঘের সদস্যভুক্ত দেশগুলো ২১ ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক দিবস হিসেবে পালন করছেন। দেশের প্রায় প্রতিটি শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার রয়েছে। আবার প্রত্যেক জেলা ও উপজেলাতে কেন্দ্রীয়ভাবে একটি করে শহীদ মিনার আছে। কিন্তু সারাবছর কোন পরিচর্যা থাকে না। শুধুমাত্র ২১ ফেব্রুয়ারিকে কেন্দ্র করে রঙের তুলিতে সাজানো হয় শহীদ মিনার। এছাড়া আশপাশের রাখা হয় বেশ পরিস্কার। আবার যেসব স্থানে শহীদ মিনার নেই সেখানে কলাগাছ কিংবা বাঁশের কঞ্চি দিয়ে শহীদ মিানার তৈরি করে শহীদ দিবস পালন করা হয়। যা বছরের অন্যকোন দিন দেখা যায়না। তবে একদিনের জন্য নয়, সারাবছরের জন্য শহীদ মিনারের পরিচর্যা করা দরকার। বিভিন্ন সময় দেখা যায়, অনেকেই শহীদ মিনারে গিয়ে সময় কাটান। প্রেমিক যুগলও বাদ যান না। কিন্তু তারা শহীদ মিনারে উঠতে পায়ের জুতা খোলা হয়েছে কিনা তা দেখার সময় পান না। আবার গরু-ছাগলকে বিশ্রাম নিতেও দেখা যায়। এছাড়া গ্রামে স্থাপিত হওয়া শহীদ মিনার এলাকায় মাদকসেবীদের আড্ডাও দেখা যায়। তবে এসব থেকে শহীদ মিনার এলাকাকে মুক্ত রাখতে দরকার সারাবছর পরিচর্যা। ভাষা শহীদদের একদিনের জন্য নয় সারাবছর ভালোবাসতে হবে; স্মরণ করতে হবে। ভাষা শহীদদের স্মরণে নির্মিত শহীদ মিনারকে সবসময় শ্রদ্ধাভরে গ্রহণ করতে হবে। সেখানে জুতা নিয়ে নয় পারলে পরিচর্যা করতে হবে। কিন্তু অপরিস্কার কিংবা অসম্মান করা যাবে না। যদি শহীদ মিনারকে অসম্মান করি তাহলে ভাষা শহীদদের অসম্মান করা হবে। তাই আমাদেরকে মনে রাখতে হবে আমাদের মায়ের ভাষার জন্য যারা জীবন দিয়েছে তাদের অসম্মান করা কখনোই ঠিক নয়। আমাদের লক্ষ্য রাখতে হবে- শহীদ মিনারকে যেন কখনোই অপরিস্কার কিংবা অসম্মান করা না হয়। এজন্য নিজেও সচেতন থাকবো অন্যকেও সচেতন রাখতে চেষ্টা করবো। বাংলা ভাষা আমাদের মাতৃভাষা। শহীদ মিনারকে সম্মান জানালে সম্মান জানানো হবে ভাষা শহীদদের প্রতি।
  • Facebook
  • Twitter
  • LinkedIn
  • Print
Copy link
Powered by Social Snap