বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯সত্য ও সুন্দর আগামীর স্বপ্নে...

অদক্ষ শ্রমিক প্রবাসে মূল্যহীন

অদক্ষ শ্রমিক প্রবাসে মূল্যহীন

সোহরাব সৌরভ : মানুষের জিবনে সাফলতা অর্জন করার মূল উপাদান হল পরিশ্রম। পরিশ্রম ব্যতীত সম্পদশালী একজন ব্যক্তি অনেকটা আলাদিনের চেরাগের হুকুম দাতার সমান। হুকুম দিলেই হয়ে যায়। এটা ক্ষণস্থায়ী। চেরাগ হাত বদল হলেই যেমন আলাদিন তার বিপক্ষীয় আচরণও করতে পারে। তেমনি পরিশ্রম না জানা ব্যতীত যে কোন ব্যক্তির সম্পদ ক্ষয়ে যেতে পারে নিমিষে। কর্ম না জানা ব্যক্তি কখনো নিজের উপর ভরসা রাখতে পারেন না। তদ্রূপ, প্রবাসে আসা বাংলাদেশি শ্রমিকদের মধ্যে বেশির ভাগ অদক্ষ শ্রমিক, কর্ম, বিসা,পেশা, ভাষা, আইন-কানুন সম্পর্কিত অজানা থাকেন। ফলে প্রবাসে এসে বিপাকে পড়েন অনেকে। অর্থ-সম্পদ ব্যয় করে আসা শ্রমিকরা কর্মহীন বা কর্ম না জানার কারণে তাদের দুর্দশার পোহাচ্ছেন। বেকার হয়ে মাসের পরে মাস কাটাচ্ছে রুমে বসে। থাকা খাওয়া সহ নানান সমস্যা ভুগছেন নতুন নতুন প্রবাসীরা। যদিও বর্তমান বিশ্ব আধুনিকায়ন যুগে ভারি ভারি যন্ত্রপাতি ব্যবহারে মানুষের কর্ম ও শারীরিক শ্রম কে যেমনি সহজ করেছে তেমনি কর্মক্ষেত্রে কমিয়ে দিয়েছে সাধারণ শ্রমিকের সংখ্যা। বিগত বছর গুলোতে বাংলাদেশর জিড়িপি ও মানুষের মাথা পিছু আয় এবং বৈদেশিক রেমিট্যেন্স যে হারে উদ্ধগতি ছিল। এবং চলতি অর্থবছরেই সরকার দেশকে মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে ঘোষণা করায় বহির্বিশ্বের দাতা সংস্থাগুলো তাদের সুযোগ-সুবিধা ক্রমান্বয়ে কমিয়ে দিবে। আশঙ্কার বিষয় হল প্রবাসীদের উপার্জিত অর্থ চলতি বছরে ব্যাপক ভাবে কমিয়ে আসার সম্ভব্যনা রয়েছে। বৈদেশিক রেমিট্যান্স কমে আসার একটাই কারণ অদক্ষ শ্রমিক বা কর্ম না জেনে প্রবাসে এসে অর্থনীতি উন্নয়ণ করার চেয়ে নিজের জমানো টাকা এবং পৈতৃক সম্পত্তি ক্ষয় করছেন অনেকই। এই সকল সমস্যা থেকে উত্তরণের পথ অনেক কঠিন হলেও প্রাথমিক পর্যায়ে বাংলাদেশ শ্রম মন্ত্রনালয় বর্হির বিশ্বে শ্রমিক রপ্তানির আইন নিয়মকানুন এবং রক্ষণাবেক্ষণ ও দক্ষ শ্রমিক হিসেবে গঠন করে বিদেশে পাঠানো উচিৎ বলে মনে হয়। তাহলে শ্রমিক তার কর্মক্ষেত্র মূল্যায়ন পাবে দেশ পাবে বৈদেশিক অর্থ। লেখক : প্রবাসী